রবিবার, ২৪ মে ২০২০, ০৬:১৪ অপরাহ্ন

অটুট থাকুক মায়ের হাসি, মা দিবসে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা

বিডি নিউজ ৭১ ডেস্কঃ

পৃথিবীর মধুরতম একটি শব্দ হচ্ছে মা । সন্তানের কাছে মা ডাক যত মধুর মায়ের কাছে সন্তানের মুখ তারচেয়ে অনেক বেশি মধুর। সন্তানকে সর্বস্ব দিয়ে বড় করেন একজন মা, পরবর্তীকালে মা যখন পরিণত বয়সে পৌঁছেন, অনেক ক্ষেত্রে সন্তানকে মায়ের প্রতি যথার্থ সেবা প্রদানে অনিচ্ছুক দেখা যায়।

 

আজ ১০ মে, মহান মা দিবস (Mothers Day) । আজকের এই দিনে পৃথিবীর সকল মায়ের প্রতি শুভেচ্ছা, শ্রদ্ধা ও আন্তরিক ভালোবাসা প্রদান করেন জাতীয় শ্রমিকলীগ নেতা আলহাজ্ব কাউসার আহমেদ পলাশ। তিনি বলেন, সন্তানের জন্য মা এমন একটি সম্পদ, যাতেই জান্নাতের ঠিকানা। প্রতিটি সন্তানের উচিত মা’কে তার যথার্থ সম্মান প্রদান করা। তাই মায়ের স্থান বিদ্ধাশ্রম নয়, মায়ের স্থান হউক হৃদয়ের মণিকোটরে। আন্তর্জাতিক মাতৃ দিবস মানে শুধুই মাকে নিয়ে বেড়াতে যাওয়া বা তাঁকে উপহার দেওয়া নয়। মাতৃ দিবস হল মাতৃত্বের উদযাপন।

 

কাউসার আহমেদ পলাশ আরও বলেন, আজ মা দিবসে আমরা হয়তো শুভেচ্ছা জানাব মাকে। মায়ের পছন্দের উপহার কিনব তার জন্য। কিন্তু সারাবছর ক’জন রাখি মায়ের খোঁজ? মনে রাখতে হবে, বয়স হয়ে গেলে মায়ের যত্ন নিতে হবে নিয়মিত।সন্তানরা যখন নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত, তখন এটা মাথায় রাখতে হবে, আমাদের মা-ও ধীরে ধীরে বৃদ্ধ হচ্ছেন। মানুষের বয়স যত বাড়ে, সে মনের দিক থেকে অনেকটা অসহায় হয়ে পড়ে। আমাদের তো সময় কাটানোর জন্য কত বন্ধু-বান্ধব, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি রয়েছে। কিন্তু মায়ের ছেলেমেয়েরা ছাড়া আর কে আছে?

ছেলেমেয়ের প্রতিটি বিষয়ের খেয়াল রাখেন মা। প্রত্যেকটা কাজের যত্ন-আত্তিতে থাকেন মা। তাই তার সন্তানদেরও উচিত একটা সময় পরে মায়ের বিষয়গুলো খেয়াল রাখার পাশাপাশি তাদের একটু সময় দেওয়া।

 

একটা প্রবাদ আছে, দাঁত থাকতে দাঁতের মর্যাদা দেওয়া। আমাদের অনেকের বাবা-মা আছেন, কিন্তু আমরা তাদের কোনো খোঁজ নিতে পারি না। সময় দিতে পারি না। কিছুটা অবমূল্যায়নের শিকার হতে হয় তাদের। কিন্তু যখন তারা থাকেন না, তখন আমরা বুঝতে পারি আসলে আমরা কী হারিয়েছি। মায়ের গর্ভে থাকা শিশুটি হামাগুড়ি দিয়ে হাঁটা থেকে শুরু করে জীবনের প্রতিটি ধাপে মাকে পান। বাবাকে পান। বটবৃক্ষ হয়ে তারা মাথার ওপরেই থাকেন। কিন্তু জীবনের শেষ বয়সে যাদের জন্য জীবনের সবটুকু সময় পার করে দিয়ে এসেছেন, তারাই যদি একটু নির্ভরতার জায়গা না হন তাহলে জীবন বয়ে চলে কীভাবে। মধুর আমার মায়ের হাসির মতো বাবা-মায়ের কাছে মধুর আমার সন্তানের হাসি। সেই অমলিন হাসিটুকু বাবা-মায়ের মন প্রসন্ন করে থাকুক এটাই তার প্রত্যাশা।

 

উল্লেখ্য, এই দিনটির সূত্রপাত প্রাচীন গ্রীসের মাতৃ আরাধনার প্রথা থেকে যেখানে গ্রিক দেবতাদের মধ্যে এক বিশিষ্ট দেবী সিবেল-এর উদ্দেশ্যে পালন করা হত একটি উৎসব। এশিয়া মাইনরে মহাবিষ্ণুব -এর সময়ে এবং তারপর রোমে আইডিস অফ মার্চ (১৫ই মার্চ) থেকে ১৮ই মার্চের মধ্যে এই উৎসবটি পালিত হত। মাদারিং সানডের মতো ইউরোপ এবং যুক্তরাজ্যে দীর্ঘকাল ধরে বহু আচারানুষ্ঠান ছিল যেখানে মায়েদের এবং মাতৃত্বকে সম্মান জানানোর জন্য (Mothers Day) একটি নির্দিষ্ট রবিবারকে আলাদা করে রাখা হত। মাদারিং সানডের অনুষ্ঠান খ্রিস্টানদের অ্যাংগ্লিকানসহ বিভিন্ন সম্প্রদায়ের পঞ্জিকার অঙ্গ। ক্যাথলিক পঞ্জিকা অনুযায়ী এটিকে বলা হয় লেতারে সানডে যা লেন্টের সময়ে চতুর্থ রবিবারে পালন করা হয় ভার্জিন মেরি বা কুমারী মাতার ও “প্রধান গির্জার” সম্মানে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...


© All rights reserved © 2018 bdnews71
Design & Developed BY N Host BD