সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ১১:০২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
দূষিতদের বের করে দিয়ে, বিশুদ্ধ আওয়ামী লীগ চাই: কাদের ঘূর্ণিঝড় হাগিবিসের আঘাতে জাপানে নিহত ১৯ আলীগঞ্জ মাঠ রক্ষায় সর্বাত্মক সহযোগীতা অব্যাহত থাকবে: ডিসি জসিম আজ ৪র্থ ডিসি গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০১৯ আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হাওরের সুন্দর পরিবেশ রক্ষার আহ্বান রাষ্ট্রপতির টাইগারদের পাকিস্তান সফরের বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেবে সরকার রাজনীতি চলবে কি না, সিদ্ধান্ত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের: শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি মহিলা শ্রমিক লীগের নবগঠিত সভাপতি সুরাইয়া, সাধারণ সম্পাদক রহিমা দেনমোহর নির্ধারণে রাসূলুল্লাহ (সা:) এর আদর্শ ৫ দফা দাবি বাস্তবায়নের আগে বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা নয়

ওসিরা এত সাহস কোথায় পায়? জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট

হাইকোর্ট

বিডি নিউজ ৭১ ডেস্ক : সাতক্ষীরার শ্যামনগর থানার ওসি মামলা না নিয়ে সালিশ-মীমাংসার প্রস্তাব দেওয়ার ও থানায় পুলিশের বিচার কার্যক্রম নিয়ে ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট।

আদালত বলেছেন, ‘ওসিরা এত সাহস কোথায় পায়? তারা নিজেরা বিচার বসায় কেমনে?’

সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার একটি ঘটনায় ওসি মামলা না নেয়ার ঘটনায় এক ব্যক্তির রিট আবেদনের শুনানিতে মঙ্গলবার বিচারপতি নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের বেঞ্চ থেকে এ মন্তব্য আসে।

আদালত বলেন, ‘ওসিরা যেখানে সেখানে কোর্ট বসায়, রাতে কোর্ট বসায়। এত সাহস তারা কোথায় পায়? তারা নিজেরা বিচার বসায় কেমনে? ওসি মামলা নিলেন না কেন? আমরা রুল দিয়ে দেখি, কেন তিনি মামলা নিলেন না। অথচ টাকা ছাড়া থানায় একটা জিডিও হয় না।’

আদালত আরও বলেন, সুবিধামতো হলে মামলা নেন, না হলে নেন না। আবার টাকা ছাড়া থানায় একটা জিডিও হয় না। ১৩ হাজার পুলিশ যারা থানায় বসেন, তাদের জন্য গোটা বাহিনীর বদনাম হতে পারে না। অনেক পুলিশ সদস্য খুব কষ্ট করে জীবনযাপন করেন। অথচ অনেকের দেখি ৪-৫টা করে বাড়ি। দেশটা কি চোরের দেশ হয়ে গেছে?

জানা গেছে, জমি নিয়ে বিরোধের জেরে ১৫ ফেব্রুয়ারি রাতে শ্যামনগর থানার সোরা গ্রামের ফজলুর করিমের বাড়িতে হামলা চালায় ইউসুফ আলীসহ কয়েকজন।

ফজলুর করিম অভিযোগ করে বলেন, তাকে মারধর করে দুই লাখ টাকা, ৮০ হাজার টাকা মূল্যের দুটি স্বর্ণের চেইন ও ৫০ হাজার টাকার মালামাল লুট করা হয়। এ সময় ফজলুর শ্যামনগর থানার ওসিকে ফোন দিলে তিনি বলেন, অন্য কাজে তিনি ব্যস্ত আছেন, পরে বিষয়টি দেখবেন। এর পর ফজলুর কালিগঞ্জ সার্কেলের এএসপিকে ফোনে বিষয়টি জানানোর পাশাপাশি ৯৯৯ এ ফোন করে সাহায্য চাইলে শ্যামনগর থানার এএসআই ঘটনাস্থলে যান। ততক্ষণে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

ওই এএসআইর ফোনে ফজলুরকে শাসিয়ে ওসি বলেন, ওপর মহলে নালিশ করিস, তোর মামলা হবে না। কোর্টে মামলা কর। তখন ফজলুরের বাবা অনুনয়-বিনয় করলে ওসি বলেন, কাল সকালে আবার তদন্ত হবে। পরদিন এসআই মনিরুজ্জামান ওই বাড়িতে গিয়ে তদন্ত করে বলেন, মামলা হবে না। পারলে চেয়ারম্যানের সঙ্গে বসে মীমাংসা করতে। ফজলুর এ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। পরে তিনি অভিযোগ করলে ২৬ ফেব্রুয়ারি পুলিশ সুপার শ্যামনগর থানার ওসিকে ব্যবস্থা নিতে লিখিত নির্দেশ দেন।

এর পরও ওসি ব্যবস্থা না নেওয়ায় তা চ্যালেঞ্জ করে ৩ মার্চ হাইকোর্টে রিট করেন শ্যামনগর উপজেলার সোরা গ্রামের ফজলুর করিম। তার পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট শামসুল হক কাঞ্চন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুল আলম।

এরপর গত ১০ মার্চ প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিষয়টি খোঁজ নিতে মৌখিক নির্দেশ দেন আদালত। এ বিষয়ে মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) আবার শুনানি শুরু হলে ঘটনার আংশিক সত্যতা আছে বলে আদালতকে জানান সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল।

বিডি নিউজ ৭১/ইমানুর রহমান

নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...


© All rights reserved © 2018 bdnews71
Design & Developed BY N Host BD