শনিবার, ০১ অগাস্ট ২০২০, ০৬:৩৫ অপরাহ্ন

আজ থেকে শুরু হলো শোকাবহ আগস্ট

বিডি নিউজ ৭১ ডেস্কঃ

আজ সেই ভয়াল আগস্ট মাস। জাতির জন্য এক কলঙ্কময় অধ্যায়ের রচনা হয় এই মাসে। ঘাতকরা এ মাসের ১৫ তারিখ স্বপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। সেই থেকে দিনটি মানবসভ্যতার ইতিহাসে ঘৃণ্য ও নৃশংসতম হত্যাকাণ্ডের কালিমালিপ্ত শোকের দিন।

জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রিয় শ্রমিক নেতা আলহাজ্ব কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, আজ পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন হবে সারা দেশে। কিন্তু সাথে সাথে শুরু হলো সেই ভয়াল আগস্ট মাস। স্বাধীন বাংলার মাটিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যা এ যেন ইতিহাসের সকল বর্বর অধ্যায়কেও হার মানিয়ে দিয়েছে। হাজার বছর পিছিয়ে দিয়েছে এ জাতির ভবিষ্যৎ।

তিনি বলেন, আজ বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে এই দেশ উন্নত আয়ের দেশে অনেক আগেই পরিনত হয়ে যেত। ঘাতকরা তা শেষ করে দিয়েছে স্বপরিবারে জাতির পিতার পরিবারকে হত্যা করে। তবে এ জাতি পেয়েছে বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে। যার হাত ধরে আজ বিশ্বের বুকে মাথা উচু করে দাঁড়াচ্ছে বাংলাদেশ।

৭৫-এর ১৫ আগস্ট নরপিশাচরূপী খুনিরা শুধু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি, হত্যার বিচার বন্ধ করতে ঘৃণ্য ইনডেমনিটি আইন জারি করে। এ কারণে দীর্ঘ ২১ বছর বাঙালি জাতি বিচারহীনতার কলঙ্কের বোঝা বহন করতে বাধ্য হয়।

১৯৯৬ সালে জাতির পিতার জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠিত হলে এ বিচারের উদ্যোগ নেয়া হয়। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে নিয়মতান্ত্রিক বিচারিক প্রক্রিয়ায় ২০১০ সালে ঘাতকদের ফাঁসির রায় কার্যকর হওয়ায় বাঙালি জাতি কলঙ্কমুক্ত হয়।

১৫ আগস্টের নিষ্ঠুরতম হত্যাকাণ্ডে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তার সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর একমাত্র ভাই শেখ আবু নাসের, জ্যেষ্ঠ পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন শেখ কামাল, দ্বিতীয় পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা লেফটেন্যান্ট শেখ জামাল, কনিষ্ঠ পুত্র শিশু শেখ রাসেল, নবপরিণীতা পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক শেখ ফজলুল হক মনি ও তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বেগম আরজু মনি, স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক ও জাতির পিতার ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছোট মেয়ে বেবী সেরনিয়াবাত, কনিষ্ঠ পুত্র আরিফ সেরনিয়াবাত, নাতি সুকান্ত আবদুল্লাহ বাবু, ভাইয়ের ছেলে শহীদ সেরনিয়াবাত, আবদুল নঈম খান রিন্টু, বঙ্গবন্ধুর প্রধান নিরাপত্তা অফিসার কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদ ও কর্তব্যরত অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী নিহত হন।

নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...


© All rights reserved © 2018 bdnews71
Design & Developed BY N Host BD