শনিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৯, ১২:৪৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
শ্রমিক লীগের শীর্ষপদের দৌঁড়ে এগিয়ে ক্লিন ইমেজ শ্রমিক নেতা পলাশ গাড়িতে টাকার বিছানায় ঘুমাচ্ছেন ডিবির এসআই, ছবি ভাইরাল এক সপ্তাহের মধ্যে ৮০ টাকায় পেঁয়াজ: বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি নিজের কাজ নিজে করায় লজ্জার কিছু নেই: প্রধানমন্ত্রী কৃষক লীগের ১০ম জাতীয় সম্মেলন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অস্ত্র মামলায় সম্রাটের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র মিথিলার অন্তরঙ্গ ছবি ভাইরাল করায় ক্ষেপেছেন তারকারা বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত পাঠাতে যুক্তরাষ্ট্রকে অনুরোধ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিএনপি থেকে পদত্যাগ করেছেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোরশেদ খান এসপি হারুনের বদলি- সন্ত্রাসীদের স্বস্তি, জনমনে আতঙ্ক | পূর্ণবহালের দাবি নগরবাসীর

শ্রমিক লীগের শীর্ষ পদে আলোচনায় আছেন যারা

বিডি নিউজ ৭১ ডেস্কঃ

দীর্ঘদিন পর সম্মেলনের তারিখ ঘোষণায় প্রাণচাঞ্চল্য ফিরেছে আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন জাতীয় শ্রমিক লীগে। নতুন কমিটিতে স্থান পেতে বিভিন্ন পর্যায়ে চলছে পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ। নীতিনির্ধারকদের কাছে তদবির করছেন পদপ্রত্যাশীরা।

আগামী ৯ নভেম্বর জাতীয় শ্রমিক লীগের কাউন্সিল। চার বছর আগেই মেয়াদ শেষ হয়েছে শ্রমিক লীগের কমিটির। ২০১২ সালের ১৯ জুলাই শ্রমিক লীগের সবশেষ সম্মেলন হয়। দুই বছর মেয়াদি এই কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে চার বছরের বেশি সময় আগে।

১৯৬৯ সালের ১২ অক্টোবর প্রতিষ্ঠা লাভ করে জাতীয় শ্রমিক লীগ। ২০১২ সালের সর্বশেষ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পান নারায়ণগঞ্জের শ্রমিক নেতা শুকুর মাহমুদ ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আছেন জনতা ব্যাংক ট্রেড ইউনিয়নের নেতা সিরাজুল ইসলাম। এই সময়ে ৪৫টি সাংগঠনিক জেলার কমিটি করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা নেতৃত্ব নির্ধারণে চুলচেরা বিশ্লেষণ করছেন। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাসহ নানা মাধ্যমে আদ্যোপান্ত খোঁজ নিচ্ছেন সংশ্লিষ্ট নেতাদের। আওয়ামী লীগের একাধিক নীতিনির্ধারকের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে এসব তথ্য।

তারা আরও জানান, তারুণ্যনির্ভর, ত্যাগী ও স্বচ্ছ ভাবমূর্তির নেতৃত্ব চাচ্ছে দলের হাইকমান্ড। ফলে শ্রমিক লীগের শীর্ষ পদসহ আগামী কমিটি থেকে বাদ পড়তে যাচ্ছেন বয়সের ভারে ন্যুজ নেতারা। সেই সঙ্গে টেন্ডার ও চাঁদাবাজি এবং ক্যাসিনো পরিচালনার সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত নেতাদের ঝেটিয়ে বিদায় করার প্রস্তুতি শুরু হয়েছে।

আগামী ৯ নভেম্বর জাতীয় শ্রমিক লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলন সামনে রেখে মাঠে নেমেছেন পদপ্রত্যাশীরা। তাদের মধ্যে সভাপতি পদে আলোচনায় রয়েছেন শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান আকন্দ।

তিনি দীর্ঘদিন ঢাকা মহানগর শ্রমিক লীগ ও রেলওয়ে শ্রমিক লীগের শীর্ষ পদে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এছাড়া শীর্ষ পদের দৌঁড়ে আছেন শ্রমিক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হুমায়ন কবির। জানতে চাইলে হাবিবুর রহমান আকন্দ বলেন, আমি দীর্ঘদিন শ্রমিক লীগের সঙ্গে আছি। দীর্ঘদিন মহানগরের নেতৃত্ব দিয়েছি। কেন্দ্রীয় কমিটির সম্মেলন সামনে। আমি চাই অভিজ্ঞ ও যোগ্যরা নেতৃত্বে আসুক। হুমায়ন কবির বলেন, নেত্রীর কর্মী হিসেবে আছি। তিনি যে পদে দেবেন সেখানেই কাজ করতে চাই।

এছাড়া শ্রমিক লীগের বর্তমান কমিটির সিরাজুল ইসলাম এবার সভাপতি পদে আলোচনায় আছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...


© All rights reserved © 2018 bdnews71
Design & Developed BY N Host BD